রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, ক্যালোরি হিসেব করে খাওয়া এবং কতটুকু খাচ্ছেন তা হিসেব করা খুবই প্রয়োজন। এর ফলে শুধু যে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে তা নয়, এর ফলে আপনার যেসব ওষুধ খেতে হচ্ছে তাও কমিয়ে আনা সম্ভব। কিভাবে? চলুন, দেখে নেই।

হিসেব করে খান

অনেকেই জানেন না যে তারা দৈনিক কত ক্যালোরি গ্রহণ করছেন। অনেক সময়ই দেখা যায় কি খাচ্ছেন তার দিকে খেয়াল না করে তারা অভিযোগ করেন যে তাদের ওজন কিছুতেই কমছে না।

তাই প্রতিদিন কি খাচ্ছেন, কতটুকু খাচ্ছেন তা লিখে রাখলে দিনশেষে আপনার খাবারে ক্যালোরির পরিমাণ হিসেব করা যেমন সহজ হবে, তেমনি কতটুকু খাওয়া কমালে আপনার ওজন আর রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আসবে আপনি সেটাও বুঝতে পারবেন।

লবণ বা সোডিয়াম এড়িয়ে চলুন

বেশি লবণ বা সোডিয়ামযুক্ত খাবার বেশিরভাগ মানুষেরই রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয়। তাই যত কম লবণ বা সোডিয়াম খাবেন, তত সহজ হবে আপনার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা।

খাবারে সোডিয়ামের পরিমাণ কমাতে নীচের কাজগুলো করতে পারেন।

• কতখানি লবণ খাচ্ছেন তার হিসেব রাখতে ফুড ডায়রি লেখা শুরু করুন।

• দৈনিক ২৩০০ মিলিগ্রাম বা ১ চা চামচের কম লবণ খাবার চেষ্টা করুন। ডাক্তারের সাথে আলোচনা করে দেখুন যে এর চেয়ে কম খেলে যেমন ১৫০০ মিলিগ্রাম, আপনার কোনো সমস্যা হবে নাকি।  

• খাবার কিনে খেলে তার প্যাকেটের গায়ে লেখা উপকরণ ভালোভাবে পড়ে দেখুন।

. দৈনিক ৫ শতাংশের কম সোডিয়াম খাওয়া হবে এমন খাবার কিনুন।

. দৈনিক ২০ শতাংশের বেশী সোডিয়াম খাওয়া হবে এমন খাবার এড়িয়ে চলুন।

• প্রক্রিয়াজাত খাবার, রেডি টু ইট বা তৈরি খাবার, ফাস্টফুড এড়িয়ে চলুন।

কি খেতে হবে জেনে নিন

পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ও আঁশ সমৃদ্ধ খাবার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। ফল এবং সবজিতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ও আঁশ আছে এবং এগুলোতে সোডিয়ামের পরিমাণও কম। আস্ত ফল এবং সবজি খাওয়া জুস খাওয়ার চেয়ে ভালো কারণ জুসে খাবারের আঁশ বাদ পড়ে যায়। এছাড়াও বাদাম, শস্যদানা, ডাল, চর্বি ছাড়া মাংস, মুরগি ম্যাগনেসিয়ামের ভালো উৎস।

খাবারের সাথে বেশি পরিমাণে পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং আঁশ গ্রহণ করতে চাইলে নীচের খাবারগুলো খেতে হবে।

• আপেল

• অ্যাপ্রিকট

• কলা

• শালগম

• ব্রকলি

• গাজর

• বরবটি

• খেজুর

• আঙ্গুর

• মটরশুঁটি

• আম

• তরমুজ

• কমলা

• পিচ

• আনারস

• আলু

• কিসমিস

• পালংশাক

• স্ট্রবেরি

• টমেটো

• টুনা মাছ

• ফ্যাট ফ্রি দই

আপনার চিকিৎসক বা পুষ্টিবিদের সাহায্য নিয়ে আপনার ডায়েট শুরু করুন। তারা আপনার ওজনের উপর ভিত্তি করে হিসাব করে বলতে পারবেন যে সঠিক ওজন ধরে রাখা বা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য আপনার দৈনিক কত ক্যালোরি খাওয়া উচিৎ। তাদের পরামর্শ অনুযায়ী আপনার পছন্দের খাবার দিয়ে সাজিয়ে নিন আপনার ডায়েট।

agency_content's picture
লিখেছেন
টনিক
Tonic is there to assist you no matter how big or small your problems may be