স্বাস্থ্য নিয়ে চিন্তিত? ফুড ডায়রি হতে পারে আপনার নতুন বন্ধু। প্রতিদিনের খাবার নিয়ে লিখতে শুরু করুন। কি খাচ্ছেন, কতোটুকু খাচ্ছেন আর স্বাস্থ্যকর খাচ্ছেন কি না তা মনে রাখা যেমন সহজ হবে তেমনি অভ্যাস বদলাতে চাইলেও সাহায্য করবে।

ওজন নিয়ন্ত্রণ করার জন্য এর চেয়ে উপকারী উপায় আর হয়না। চলুন জেনে নেই কিভাবে ফুড ডায়রি দিয়ে আপনি উপকার পেতে পারেন।

ফুড ডায়রি - কি লিখবেন

• এর জন্য চাইলে ব্যবহার করতে পারে নোটপ্যাডের মতো কোনো অ্যাপ, ডায়রি, অথবা আপনার ব্লগ, তবে খেয়াল রাখবেন যেন প্রতিদিন নিয়ম করে লেখা হয়।

• যতদূর সম্ভব বিস্তারিত লেখার চেষ্টা করবেন, যদি সালাদ খান তাহলে সালাদে কি কি সবজি ছিলো, কোনো ড্রেসিং দিয়েছেন কী না সব লিখে রাখুন।

• কতো বড় বাটিতে খেয়েছেন সেটা লিখতে ভুলবেন না যেন। তাহলে আন্দাজ করা যাবে যে আপনি আপনার প্রয়োজনের চেয়ে বেশি খাচ্ছেন নাকি। শুরুতে আপনি কতোটুকু খান বুঝতে একটু অসুবিধা হবে হয়তো, কিন্তু কদিনের মধ্যেই তা সহজ হয়ে যাবে।

• সবচেয়ে ভালো হয় যদি খাওয়ার পরপরই লিখে ফেলতে পারেন, না হলে সারাদিনেরটা রাতে একেবারে লিখতে সময়ও বেশি লাগবে আর সব মনে নাও থাকতে পারে।

ফুড ডায়রি দিয়ে কি বুঝবেন

আপনার খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করতে চাইলে ফুড ডায়রি খুবই উপকারী হতে পারে। প্রতিদিনের প্রতিটা খাবারের নথি দেখে আপনি সহজেই বের করতে পারবেন, কোন কোন খাবার আপনার জন্য ক্ষতিকর, আর কোন খাবার খাওয়ার অভ্যাস বদলে ফেললে সেটা আপনার জন্য ভালো হতে পারে।

নিজেকে কিছু প্রশ্ন করুন

• আমি কতো ক্যালরির খাবার খাচ্ছি?

• আমার খাওয়ায় লবণ/চিনি/চর্বি কি বেশি হচ্ছে?

• আমার খাওয়ার পরিমাণ কি অনেক বেশি?

• বাসায় আমি যা খাই তা কি বেশি স্বাস্থ্যকর?

• একা থাকলে কি আমি বেশি খাই?

• আমি কি খিদে পেলেই খাই নাকি সময় মেনে খাই?

• ব্যায়ামের পরে কি আমি বেশি খাই?

• আমি কি মাঝে মাঝেই একবেলার খাওয়া বাদ দেই?

• ব্যস্ততা আর মানসিক চাপ বাড়লে কি আমি অস্বাস্থ্যকর খাবার বেশি খাই?

এই প্রশ্নগুলোর সঠিক উত্তর আপনার স্বাস্থ্যকর ডায়েট তৈরি করতে আর সেটা বজায় রাখতে সাহায্য করবে অনেকাংশেই।

পুষ্টিবিদের সাহায্য চাইলে

যদি আপনি পুষ্টিবিদের সাথে আলোচনা করে আপনার সুস্বাস্থ্যের জন্য কার্যকর একটি ডায়েট প্ল্যান তৈরি করতে চান তাহলে আপনার ফুড ডায়রি দেখে কাজ করা তার জন্য খুবই সহজ হবে। এছাড়াও উনি আপনাকে বুঝিয়ে বলতে পারবেন যে কোন ধরনের খাবার আপনি বেশি খাচ্ছেন আর কোনটা আরেকটু বেশি খেলে ভালো হয়। এতে আপনার খাবারের সম্পর্কে ধারণাও পরিষ্কার হবে এবং খাবার সময় আপনি স্বাস্থ্যকর খাবার পছন্দ করে নিতে পারবেন।

আর্টিকেলটি ভালো লাগলে এখনি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন #mytonic লিখে।

tonicadmin's picture
লিখেছেন
টনিক
Tonic is there to assist you no matter how big or small your problems may be