বলা হয় সুস্থতার মূল্য আমরা তখনই বুঝতে পারি যখন অসুস্থ হই। আসলেই তাই। এবং পাশাপাশি এটিও সত্যি যে সুস্থ অবস্থায় আমরা যদি নিজেদের নিয়ে একটু সচেতন থাকি, অনেক অসুস্থতা প্রতিরোধ করা সম্ভব। এজন্য স্বাস্থ্য সচেতন ব্যক্তিমাত্রই নিয়মিত হেলথ চেক-আপ, রুটিনমাফিক ডাক্তার দেখানো এ কাজগুলো করে থাকেন। তবে সব চেক-আপ হাসপাতালে গিয়েই করতে হবে তা কিন্তু না, অনেক গুরুতর রোগের সহজ স্ক্রিনিং রয়েছে যা আপনি বাড়িতে বসে নিজেই করতে পারেন। তার মধ্যে অন্যতম হল ব্রেস্ট ক্যান্সার।

ব্রেস্ট ক্যান্সার আজকাল যে কোন বয়সের নারীদের আক্রান্ত করছে। পৃথিবীজুড়ে মহিলাদের ক্যান্সারজনিত মৃত্যুর পরিসংখ্যানে দেখা যায় এর অবস্থান শীর্ষের দিকে। অথচ প্রাথমিক পর্যায়ে সনাক্ত করা গেলে ব্রেস্ট ক্যান্সারের যথাযথ চিকিৎসা রয়েছে এবং পরবর্তীতে সম্পূর্ণ সুস্থ জীবনযাপন সম্ভব। সমস্যা এখানেই যে মহিলারা এখনো এই বিষয়টি নিয়ে সচেতন নন, তাই প্রায়ই এমন অবস্থায় রোগ ধরা পড়ে যখন রোগীর মৃত্যু আর ঠেকানো যায় না। এ পরিস্থিতি পরিবর্তনের জন্য নারীদের মধ্যে স্তন পরীক্ষা সম্পর্কে ব্যাপকভাবে সচেতনতা সৃষ্টি জরুরী যাতে তারা যে কোন অস্বাভাবিকতা শুরুতেই চিহ্নিত করতে পারেন ও চিকিৎসা নেন।

ব্রেস্ট মূলত ফ্যাটি টিস্যু বা চর্বি দিয়ে তৈরী। ঠিক যেমন দু’জন মানুষের চেহারা একরকম হয় না, তেমনি প্রত্যেকের ব্রেস্টের আকৃতি ও প্রকৃতিগত ভিন্নতা রয়েছে। নিজের স্বাভাবিকতা বুঝতে পারাটা স্তন পরীক্ষার প্রথম ধাপ। এছাড়া নারীদের মাসিক ঋতুচক্রের কারণে হরমোনের মাত্রায় যে পরিবর্তন আসে সেটিও স্তনে প্রভাব ফেলে। এজন্য কারো কারো স্বাভাবিকভাবেই মাসের নির্দিষ্ট সময়ে ব্রেস্ট ভারী মনে হয় বা ব্যথা লাগে। এসব শারীরবৃত্তিক তারতম্যগুলোকে আগে বুঝে নিতে হবে। তবেই আমরা সমস্যা নির্ণয় করতে পারবো।

নিয়মিতভাবে নিজের স্তনের যে কোন অস্বাভাবিক চাকা বা টিউমার সনাক্ত করার জন্য হাত দিয়ে পরীক্ষা করে দেখার পদ্ধতিকে বলা হয় সেলফ ব্রেস্ট এক্সাম। মাসে অন্তত দু’বার মাসিক ঋতুচক্রের নির্দিষ্ট সময়ে প্রত্যেক নারীর ব্রেস্ট পরীক্ষা করা উচিত। বগলের উপরের অংশ থেকে দেখা শুরু করবেন এবং ধীরে ধীরে নিচে ও ভেতরের দিকে হাত দিয়ে অনুভব করতে করতে আসবেন। দেখতে হবে খালি চোখে কোন পরিবর্তন ধরা পড়ে কিনা, এছাড়া দাঁড়িয়ে এবং শোয়া অবস্থায় কোন চাকা হাতে লাগে কিনা। ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রাথমিক অবস্থায় সাধারণত বগল, গলার নিচের অংশ বা স্তনের নিচের দিকে ছোট টিউমার হিসেবে দেখা দেয়। তবে চাকা টের পেলেই ঘাবড়ে যাবেন না, কারণ দেখা গেছে ব্রেস্টে যেসব টিউমার বা চাকা ধরা পড়ে তার শতকরা মাত্র বিশ ভাগ ক্যান্সারে রূপ নেয়। তাই আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং পরবর্তী পরীক্ষা কি হবে জানুন।

সেলফ ব্রেস্ট এক্সাম খুব সাধারণ সহজ একটি বিষয়। অথচ ব্রেস্ট ক্যান্সার দ্রুত নির্ণয়ে এবং নিরাময়ে এর রয়েছে অপরিসীম গুরুত্ব। তাই এ ব্যাপারে প্রত্যেক নারী নিজে উদ্যোগী হোন এবং অন্যদেরও সচেতন করুন।

agency_content's picture
লিখেছেন
টনিক
Tonic is there to assist you no matter how big or small your problems may be