পরিষ্কার ঘর সবারই ভালো লাগে। তবে সাফাই ধোলাই-এর কাজ বাড়ির কর্তা এড়িয়ে যেতে পারলেও কর্ত্রীর সে উপায় নেই। প্রতিদিনের না হলেও প্রতি সপ্তাহের কাজগুলো এক সময় একেবারে একঘেঁয়ে হয়ে যাওয়াটা স্বাভাবিক। তাই সেই ঘর সাফাইকে বদলে নিন মজার মজাদার ব্যায়ামে। কাজ করতে করতে বাড়তি মেদও ঝরিয়ে ফেলুন।

বাথরুম পরিষ্কার

বাথরুম পরিষ্কার করার মধ্যে দিয়ে ঘাড়, বুক, পেট ও পিঠের দারুণ এক্সারসাইজ হতে পারে।

যা করবেন

মেঝেতে তোয়ালে বা নরম কোনো কাপড় বিছিয়ে এক হাঁটু তার ওপর রাখুন। আরেক হাঁটু বাথটাবের গায়ে ঠেস দিয়ে রাখবেন। এক হাতে দেহের ভর রেখে আরেক হাতে বাথটাবের ভেতরটা ঘষে ঘষে পরিষ্কার করুন। নির্দিষ্ট সময় পর পর হাঁটু বদলান। বুক, পিঠ ও পেটের মূল পেশীগুলোকে কাজে লাগান বেশি করে।

যা করবেন না

ƒ

বাথটাবের ভেতরে বেশি ঝুঁকবেন না। বেশি ঝুঁকে কাজ করলে পিঠে ব্যাথা হতে পারে।

ঘর ঝাড়ু

ঘড় ঝাড়ু দিতে দিতেই আপনি পেয়ে যেতে পারেন মেদহীন দেহ! কেবল সহজ কিছু নির্দেশনা মানতে হবে। আর এই এক্সারসাইজে উপকৃত হবে আপনার পা, পশ্চাদ্দেশ, পেট ও ঘাড়।

যা করবেন

যতটা পারা যায় সটান থেকে ঝাড়ু ধরুন। না ঝুঁকে সোজা হয়ে দাড়িয়ে ঝাড়ু দেয়ার চেষ্টা করুন। ঝাড়ু ঘোরানোর বেলায় কোমর ও পায়ের নড়াচড়ার দিকে জোর দিন।

যা করবেন না

ঝাড়ু দেয়ার বেলায় যেন হাতের কব্জিতে চাপ না পড়ে। মেরুদণ্ড বাঁকাবেন না। শরীর থেকে এতটা দূরে ঝাড়ু ধরবেন না যেন আপনাকে ঝুঁকতে হয়।

ভ্যাকুয়াম ক্লিনার

ভ্যাকুয়াম ক্লিনার ব্যবহার করে ধুলো-ময়লা পরিষ্কার করার কাজটি করতে গিয়ে আপনি সহজেই আপনার পা, পশ্চাদ্দেশ, পেট, ঘাড় ও বুকের পেশীর ব্যায়াম করতে পারেন।

যা করবেন

একই রেখায় এক পা সামনে এবং এক পা পেছনে রেখে হাঁটু কিছুটা বেঁকিয়ে দাঁড়ান। ভ্যাকুয়াম ক্লিনার হাতে হালকাভাবে ধরুন এবং কনুই বেঁকিয়ে ও সোজা করে চালান। পা এবং পশ্চাদ্দেশ ব্যবহার করে দেহের ভর একবার সামনের পায়ে ও একবার পেছনের পায়ে নিন।

যা করবেন না

হাঁটু সোজা করবেন না। যদি তা করেন তবে দেখবেন আপনি ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের ওপর ঝুঁকে আছেন আর এতে করে পিঠে ব্যাথা হতে পারে।

 

রান্নাঘর পরিষ্কার

রান্নাঘর পরিষ্কার করার কাজটি যতই নিরানন্দ মনে হোক তা আপনার উর্ধ্বাঙ্গের বিশেষ করে বাহু ও পেটের বেশ কাজে লাগতে পারে।

যা করবেন

রান্নাঘরের কাওণ্টারের পাশে এক পা সামনে এক পা পেছনে রেখে দাঁড়ান। কোমর থেকে নয় মাজা থেকে ঝুঁকবেন। কাওণ্টার পরিষ্কার করবেন গোল গোল করে কাপড় ঘুরিয়ে। তাহলে একবার সামনে, একবার পেছনে ঝুঁকতে হবে এবং প্রয়োজন মতো চাপ প্রয়োগ করতে পারবেন। এতে আপনার ‘কোর’ (অর্থাৎ বুকের নিচ থেকে তলপেট পর্যন্ত সামনে এবং পেছনে) পেশীগুলো সচল হবে।

যা করবেন না

কাওণ্টারে ঠেস দেবেন না। তাহলে কোর পেশীগুলোর কোনো ব্যায়াম হবেনা। আপনার জায়গা থেকে শরীর বেশি বাঁকাবেন না। প্রয়োজন হলে পশ্চাদ্দেশ এবং পা ব্যবহার করে ঝুঁকুন।


আপনার প্রিয়জনের সাথে আর্টিকেলটি শেয়ার করুন #mytonic লিখে।

tonicadmin's picture
লিখেছেন
টনিক
Tonic is there to assist you no matter how big or small your problems may be