আপনার সন্তানকে শাকসবজি খাওয়াতে গিয়ে প্রতিদিন যুদ্ধে নামতে হচ্ছে? চিন্তা নেই, টনিক বাতলে দিচ্ছে এমন কিছু উপায়, যা প্রয়োগ করে শিশুকে সবজি খাওয়াতে পারবেন সহজেই।

নিজেই হয়ে যান উদাহরণ

বাচ্চারা বড়দের দেখে শেখে। আপনি নিজে যদি সবজি না খান, আপনার বাচ্চাও খেতে চাইবে না এটাই স্বাভাবিক। তাই নিজেই হয়ে উঠুন সন্তানের জন্য আদর্শ। প্রতিদিন খাবার টেবিলে রাখুন সবজি এবং ফলমূল। আপনার দেখাদেখি আপনার সন্তানও খাবে। গবেষণায় দেখা গেছে, বাচ্চারা তাদের চারপাশের লোকজনকে দেখে খেতে শেখে। যদি বাড়িতে সবাই সবজি খায়, তাহলে আপনার সন্তানেরও সবজি খাওয়ার অভ্যাস তৈরি হবে।

খাওয়ার সময় মনোযোগ থাকুক খাবার টেবিলে

খাওয়ার সময় অন্য কোনো দিকে মনোযোগ থাকলে খাওয়া ঠিকমতো হয় না। এটা বড়দের ক্ষেত্রে তো বটেই, ছোটদের বেলায়ও খাটে। রাতের খাবার খাওয়ার সময় টিভিটা বন্ধ রাখুন, সরিয়ে রাখুন মোবাইল, ল্যাপটপ কিংবা ট্যাব। সন্তানের সম্পূর্ণ মনোযোগ যেন খাবারের বেলায় থাকে সে বিষয়টি নিশ্চিত করুন। তবেই সে নতুন খাবার চেখে দেখার ব্যাপারে আগ্রহী হবে।

চেষ্টা চালিয়ে যান


খাবারের স্বাদ কিংবা গন্ধ বোঝার বিষয়ে শিশুরা প্রতিদিনই নতুন কিছু শেখে। অল্প বয়স থেকেই সবজি খাওয়ার অভ্যাস করলে তাদের সবজির প্রতি অনীহা থাকবে না। এক্ষেত্রে সবজির নামসহ ছবির বই দেখিয়ে দেখিয়ে সবজি খাওয়াতে পারেন। এমনও দেখা গেছে, বাজার করার সময় বাচ্চারা বাবা-মায়ের সঙ্গে থাকলে সবজি সম্পর্কে ধারণা পায়। এভাবে বাচ্চারা বুঝতে শেখে তারা কি খাচ্ছে এবং তা খাওয়ার প্রতি আগ্রহী হয়।

খেলতে খেলতে খাওয়া


খেলতে খেলতে খাওয়ার চল আমাদের দেশে নতুন নয়। ভাত মাখিয়ে গোল বল বানিয়ে মুখে পুরে দেয়া বাবা-মায়েদের পুরোনো বুদ্ধি। এই পদ্ধতি আপনি সবজি খাওয়ানোর বেলাতেও কাজে লাগাতে পারেন। সবজি কেটে গাড়ি কিংবা হাসিমুখ বানিয়ে দিন যেন শিশুর কাছে দেখতে আকর্ষণীয় হয়। খাওয়ার সময় তাদেরকে বুঝিয়ে বলুন, সবজি দেহের জন্য কতটা উপকারী। এছাড়া সবজি কেনা থেকে শুরু করে কাটা, রান্না এবং টেবিলে পরিবেশন পর্যন্ত বাচ্চাদের সাহায্য করার সুযোগ দিন, এতে ওদের আগ্রহ বাড়বে।

একসঙ্গে বসে খান


দিনের অন্তত একটি সময় পুরো পরিবার যখন একসঙ্গে বসে খায়, তখন খাওয়ার পুরো প্রক্রিয়ার সঙ্গে শিশুর একটি সম্পকর্ তৈরি হয়। পরিবারের সবার সম্পর্কও ভাল থাকে। পাশাপাশি বাচ্চারা ঠিকমতো খেতে শেখে।

বুঝিয়ে বলুন

অনেক সময় বাচ্চারা সবজি খেতে না চাইলে বকা দিয়ে খাওয়ানোর চেষ্টা করেন বাবা-মা। ধমক দেয়া বা কড়া করে বলার বদলে তাকে বুঝিয়ে বলুন সবজি রান্না করতে আপনার কতোখানি পরিশ্রম করতে হয়েছে। এছাড়া সবজি খেতে যে কতো মজা এবং তা খেলে তার দেহের কতোটা উপকার হবে তাও বোঝানোর চেষ্টা করুন।

পুরস্কার হিসেবে খাবার নয়

‘সবজিটুকু খেলে তোমাকে আইসক্রিম দেবো’—এই ধরনের আশা বাচ্চাদের ভুল দিকে ঠেলে দেয়। তাহলে তারা মনে করে সবজি খাওয়া একটি বাধ্যতামূলক কাজ, যা করলে সে একটি পুরস্কার পাবে। যার ফলে সে কখনোই খাবার হিসেবে সবজি খাওয়ার ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে উঠবে না।

 

খাবারের রুটিন তৈরি করুন

বাচ্চাদের ঘুমের রুটিনের মতো খাওয়ার রুটিন থাকাও ভাল, এর ফলে তারা পরিমিত এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে শেখে। অনেক সময় বাচ্চারা খাবারের আগে হাবিজাবি খেয়ে পেট ভরে ফেলে, এরপর সবজি খেতে চায় না। প্রত্যেক বেলা নাশতা কিংবা খাবারের আগের সময়টুকু হালকা নাশতাজাতীয় খাবার নাগালের বাইরে রেখে দিন, তাদের ক্ষুধা লাগার সুযোগ দিন। তাহলে সবজি খাওয়ানো এতোটা কঠিন হবে না।

agency_content's picture
লিখেছেন
টনিক
Tonic is there to assist you no matter how big or small your problems may be