পহেলা বৈশাখে ফুড পয়জনিং?

এই এক সমস্যায় আমাদের অনেককেই পড়তে হয়। দেখা গেলো পহেলা বৈশাখের দিনে আপনি খুব উপভোগ করলেন, সারাদিন মজা করলেন, বাইরে এটা-সেটা মজাদার খাবার খেলেন। দিন শেষে বাসায় ফিরতেই পেটে মোচড় দিয়ে উঠলো! আর তারপর সারারাত চললো পেটে ব্যাথা আর ওয়াশরুমে দৌড়াদৌড়ি! এই ভয়ংকর বাজে অভিজ্ঞতা আমাদের অনেকেরই আছে। তবে আজ আসুন এর প্রতিকার জেনে নেয়া যাক।

  • প্রথমেই আপনাকে যা করতে হবে, বাসা থেকে পানির বোতল সাথে নিয়েই বের হতে হবে। যখনই পানির পিপাসা পাবে, হাতের কাছেই পাবেন বিশুদ্ধ ফুটানো পানি। এবং দিনে অবশ্যই প্রচুর পানি পান করুন। যেন আপনার শরীরে পানি শুন্যতা না দেখা দেয়।

  • রাস্তার পাশেই দেখবেন লেবুর শরবতসহ নানা মজাদার ফলের শরবতের মেলা বসেছে। ভুলেও সেসব খেতে যাবেন না। কারণ এইসব শরবতে ব্যবহৃত পানি অপরিস্কার, ফুটানো নয় এবং নানা পানিবাহিত রোগের জীবাণু ভরপুর। যেমন কলেরা, টাইফয়েড ইত্যাদি। এইসব শরবত খেতে আপনি সহজেই এইসব রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়বেন।

  • ইদানীং পেয়ারা, আম, স্ট্রবেরিসহ নানা ফলের কাসুন্দি দিয়ে মাখা ভর্তাও পাওয়া যায়। দেখলেই মন চাইবে খেতে। আপনার হয়তো মনে হবে ‘ফলই তো! খাওয়াই যায়। জীবাণু নেই’। ভুলটা এখানেই করবেন। এইসব ফলে পুষ্টি যেমন আছে, জীবাণুও তেমনি ভরপুর। কারণ এইসব ফল ধোয়ার জন্য ব্যবহৃত পানি অপরিস্কার। তাছাড়া কাটার আগে ফলও ধুয়ে নেয়া হয় না। আর যিনি বানান তার অপরিস্কার হাত থেকে জীবাণু তো সহজেই আপনার খাবারে প্রবেশ করে।

  • রাস্তার পাশে আরো অনেক মজাদার খাবার দেখতে পাবেন। কিন্তু মাথায় রাখবেন এই কাঠফাটা গরমে খাবার দ্রুত নষ্ট হয়। হয়তো আপনি টের পেলেন না ,খেয়ে ফেললেন। কিন্তু আপনার শরীর ঠিকই টের পাবে। আপনি অসুস্থ হয়ে পড়বেন।

অতএব পহেলা বৈশাখে মজা তো অবশ্যই করবেন। তবে অবশ্যই নিজের স্বাস্থ্যের খেয়াল রেখে। সারাদিন  মজা করার পর রাতে অসুস্থ হয়ে পড়তে আপনি নিশ্চয়ই চান না। সুস্থ থাকুন।

 

৪৩৭৯৯ বার পড়া হয়েছে এপ্রিল ১০, ২০১৭


৪৩৭৯৯ বার পড়া হয়েছে


agency_content's picture

লিখেছেন টনিক

ভালো থাকতে ছোট বড় সব চেষ্টায় আপনার পাশে আছি আমরা। টনিক।

সংশ্লিষ্ট প্রশ্ন

উত্তর দেখুন
 
লোডিং...

টনিক ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন

আজই টনিকের সকল সাধারণ ফিচার উপভোগ করুন

আপনার গ্রামীণফোন নাম্বারটি প্রদান করুন

০১৭ -

Top