আসছে শীত। শীত মানেই ঠাণ্ডা, জ্বর, গায়ে ব্যথা, মাথা ব্যথা, ত্বক শুষ্কতা আর নানা কিছু। এইসব কিছুর সাথে অসুখ-বিসুখ আর সর্দি-কাশির প্রকোপ তো বোনাসেই আসে। অসুস্থতা বেশি হলে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। তবে কিছু সাধারণ সাবধানতা অবলম্বন করলে সর্দি-কাশির মতো সমস্যা থেকে আপনি সহজেই রক্ষা পেতে পারেন বলে আশা করা যায়।

তবে আসুন জেনে নেয়া যাক এই সম্পর্কে টনিক এক্সপার্টের কিছু টিপস।

  • ঘন ঘন হাত ভালো করে সাবান, স্যানিটাইজার বা হ্যান্ড ওয়াশ দিয়ে ধোয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। কোন কিছু খাওয়ার আগে ও পড়ে অবশ্যই হাত ভালো করে ধুয়ে নিন।

  • আপনার চারপাশ পরিস্কার রাখুন। টেবিল, চেয়ার, ল্যাপটপ, মোবাইল ফোন, কাপ-বাটি সব। যদি সম্ভব হয় তবে আপনার ব্যবহার্য সকল কাপড়-চোপড়, চাদর ভালোভাবে কয়দিন পর পর ধুয়ে ফেলুন। এতে করে সর্দি-কাশি সৃষ্টিকারী রোগের জন্য দায়ী ভাইরাস-ব্যাকটেরিয়ার দ্রুত বিস্তার রোধ করা যাবে।

  • প্রতিদিন গোসল করুন। গোসলে হালকা গরম পান ব্যবহার করতে পারেন। নিয়মিত গোসলের ফলে শরীর পরিচ্ছন্ন থাকবে এবং অ্যালার্জি সৃষ্টিকারী এলারজেন ও বিভিন্ন ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া থেকে ত্বক মুক্ত থাকবে। এছাড়াও শরীরে ব্যথা থাকলে সেক্ষেত্রেও আরাম পাওয়া যাবে।

  • আদা চা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। মধুও এইক্ষেত্রে একই ভাবে সাহায্য করে। তাই সর্দি-কাশি হলে আদা-চা, মধু খাওয়া যেতে পারে।

  • ভালো এবং স্বস্তির ঘুমও শরীরের রোধ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে অনেক সহায়ক। রাতে ঘুমানোর আগে এক গ্লাস গরম দুধ ভালো ঘুমের পক্ষে বেশ কার্যকর।

  • হাঁচি-কাশির সময় কাপড় বা রুমাল দিয়ে নাক মুখ ঢাকুন। দিন শেষ সে কাপড়টি ভালোভাবে জীবাণুনাশক দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই ছোট্ট একটি চমৎকার স্বভাবের কারণে আপনি যেমন সুস্থ থাকবেন তেমনি অন্যরাও সুস্থ থাকবে।

  •  পর্যাপ্ত পানি পান করুন। পর্যাপ্ত পানি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

agency_content's picture
লিখেছেন
টনিক
Tonic is there to assist you no matter how big or small your problems may be